• ঢাকা
  • সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০১:৫৪ অপরাহ্ন

নন্দীগ্রামে পরিকয়া প্রেমিকের নামে গৃহবধূর ধর্ষণ মামলা


প্রকাশের সময় : মে ২৫, ২০২৩, ৮:০৩ PM / ১৫১
নন্দীগ্রামে পরিকয়া প্রেমিকের নামে গৃহবধূর ধর্ষণ মামলা

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার নন্দীগ্রামে বোনের বাড়িতে বেড়াতে এসে এক গৃহবধু (২৯) ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় ওহিদুল ইসলাম (৪৫) নামের একজনকে গ্রেফতার দেখিয়ে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। সে নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার কাশিয়াবাড়ি এলাকার খোদা বকসের ছেলে।

গত বুধবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের ভরতেতুলিয়া কারিগরপাড়া এলাকার একটি বাড়িতে অবরুদ্ধ অবস্থায় ওহিদুলকে উদ্ধার করে পুলিশ। সে দুই সন্তানের জনক এবং ওই গৃহবধু এক সন্তানের জননী।

স্থানীয় সূত্র ও গৃহবধূ জানান, বিয়ের প্রলোভনে গত ১২ বছর ধরে তারা দু’জন পরকীয়া সম্পর্কে জড়ায়। ওই নারী ভরতেতুলিয়া গ্রামে বোনের বাড়িতে বেড়াতে এলে তার প্রেমিকও সেখানে আসে। প্রেমিক আসামাত্রই দুই বোন মিলে তাকে একটি ঘরে আটকে রেখে স্থানীয়দের খবর দেয়।

ঘটনাস্থলে গ্রামের দেড় শতাধিক মানুষ উপস্থিত হলে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল পেয়ে সেখান থেকে অবরুদ্ধ অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার আত্রাই উপজেলার ওই নারী বাদী হয়ে পরকীয়া প্রেমিকের বিরুদ্ধে নন্দীগ্রাম থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করলে ওহিদুলকে গ্রেফতার দেখিয়ে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করে পুলিশ।

মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়, আত্রাই উপজেলার উলুবাড়িয়া এলাকার ওই নারীর সঙ্গে একই উপজেলার সগুনা এলাকার এক ব্যক্তির ১৫ বছর পূর্বে বিবাহ হয়। সংসার জীবনে তাদের ১৩ বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে। ১২ বছরপূর্বে ওহিদুলের সঙ্গে ওই নারী একটি এনজিওর প্রজেক্টে কাজ করতো। একপর্যায়ে তারা প্রেমের সম্পর্কে জড়ায়। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে গিয়ে বিয়ের প্রলোভনে ওই নারীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে ওহেদুল। পরকীয়ার বিষয়টি জানতে পেরে ৫ বছরপূর্বে গৃহবধুকে বাপের বাড়িতে রেখে আসে তার স্বামী। গত শনিবার ওই নারী তার বোনের বাড়ি নন্দীগ্রামের ভরতেতুলিয়া কারিগরপাড়ায় আসে। ৪দিন পর বুধবার ওই বাড়িতে যায় প্রেমিক ওহেদুল। সেখানে অবরুদ্ধ অবস্থায় ওই নারী গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ভিডিও বক্তব্যে বলেন, বিয়ের প্রলোভনে ওই ব্যক্তি তাকে বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে গিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। বোনের বাড়িতে ডেকে এনে বিয়ে করার জন্য ওহেদুলকে আটকে রাখে। সেখানে তারা অনৈতিক সম্পর্কে জড়ায়নি। তবে মামলায় উল্লেখ করেন সে ঘটনাস্থলে ধর্ষণের শিকার।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা কুমিড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক শাহারুল আলম বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে গৃহবধু থানায় মামলা দায়ের করলে আসামিকে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।