• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন

টমেটোর বাম্পার ফলনে চাষিদের ভাগ্য বদলের স্বপ্ন


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ১৩, ২০২৩, ১১:১০ PM / ৮১
টমেটোর বাম্পার ফলনে চাষিদের ভাগ্য বদলের স্বপ্ন

 

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট:বাগেরহাটের চিতলমারীতে সবজি চাষিরা টমেটো চাষের মাধ্যমে ভাগ্যবদলের স্বপ্ন দেখছেন। মাছের ঘেরের পাড়ে তাঁরা টমেটোর চাষ করে বিপ্লব ঘটিয়েছেন। এ বছর বাম্পার ফলন হয়েছে। এখানের প্রতিটি ঘেরের পাড়ে গাছে গাছে টমেটো ব্যাপক ফলন হয়েছে। প্রতিদিন প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে পৌঁছে যাচ্ছে ট্রাক। চাষিদের অক্লান্ত পরিশ্রমে উৎপাদিত এই টমেটো উপজেলা ছাড়িয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের চাহিদা মেটাচ্ছে। এ বছর দামেও চাষিরা বেশ খুশি। তাই তাঁরা টমেটো চাষের মাধ্যমে ভাগ্য বদলের স্বপ্ন দেখছেন।

চিতলমারী উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, এখানে মোট চিংড়ি ঘেরের সংখ্যা ১৬ হাজার ১৫ টি। যার মোট আয়তন ১৬ হাজার ৭৩৪ একর। এরমধ্যে ১৩ হাজার ৭৫৮ টি ঘেরে গলদা ও ২ হাজার ২৫৭ টি ঘেরে বাগদা চিংড়ির চাষ হয়। এখানের চাষিরা বছরে ২৬০ মেট্রিকটন বাগদা ও গলদা চিংড়ি এবং বিপুল পরিমান সাদা মাছ উৎপাদন করে থাকেন। এ উপজেলার প্রায় প্রতিটি ঘেরের পাড়ে চাষিরা সবজি চাষ করেন। মাছ চাষের পাশাপাশি তাঁরা সবজি চাষে ব্যাপক লাভবান হন।

চিতলমারী কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলায় কমপক্ষে ১৬ হাজার সবজি চাষি পরিবার রয়েছে। এখানের চাষিরা এক হাজার ৫৭৬ একর জমিতে শসা, ৪৬৫ একর জমিতে করল্লা, ১৩১ একর জমিতে মিষ্টি কুমড়া, ১০৪ একর জমিতে চাল কুমড়া ও ৫৯৫ একর জমিতে অন্যান্য সবজিসহ মোট ২ হাজার ৮৭১ একর জমিতে সবজি চাষ করে থাকেন। এবার শীতের সময় কৃষকরা টমেটোসহ বিভিন্ন প্রকার সবজির চাষ করেছেন। আর অধিকাংশ চাষই হয়েছে মাছের ঘেরের পাড়ে। এ বছর উপজেলায় ১ হাজার ৮৪০ একর জমিতে চক্র, পানপাতা, মিন্টু সুপার, লাভলী, হাইটম ও বিউটিসহ বিভিন্ন জাতের টমেটোর চাষ করা হয়েছে। টমেটোর চাষ করে এখানের চাষিরা বিপ্লব ঘটিয়েছেন। প্রতিটি ঘেরের পাড়ের গাছে এখন টমেটো উপচে পড়ছে।

খড়মখালী গ্রামের টমেটো চাষি গনপতি মন্ডল, প্রকাশ মজুমদার, সুজিত সিংহ ও অনিমেশ মন্ডল (সাদ্দাম) বলেন, ‘এ অঞ্চলের টমেটো দেশের বিভিন্ন এলাকার চাহিদা মেটায়। প্রতিবছর এখানে কয়েক লাখ টন টমেটো উৎপাদিত হয়। এ বছর টমেটোর বাজার দর ভাল। প্রথমদিকে ২ হাজার টাকা প্রতিমন বিক্রি হলেও বর্তমান দর মনপ্রতি ৮০০ টাকা। এতেও চাষিদের লাভ হবে। তাই আমরা এ বছর টমেটো চাষের মাধ্যমে ভাগ্যবদলের স্বপ্ন দেখছি।’

চিতলমারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সিফাত-আল-মারুফ জানান, টমেটো এ অঞ্চলের চাষিদের একটি প্রধান অর্থকারী ফসল। এ বছর শীতকালীন রোগ বাইলাই কম হয়েছে। টমেটোরও বাম্পার ফলন হয়েছে। এ বছর চাষিরা লাভবান হবেন।