• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০৯:৩২ অপরাহ্ন

স্বপ্নবাজদের স্বপ্ন পূরণের দিন বিশ্ব ভালবাসা দিবস


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১৩, ২০২৪, ১১:১৭ PM / ২৪৩
স্বপ্নবাজদের স্বপ্ন পূরণের দিন বিশ্ব ভালবাসা দিবস

মোখলেসুর রহমান তোতা : ভালবাসার নিবিড় মোহনায় এসো আবদ্ধ হই আজ দুজনায়। হ্যা আজ ১৪ ই ফেব্রুয়ারী বিশ্ব ভালবাসা দিবস, ভ্যালেন্টাইন্স ডে।প্রতি বছরের ন্যায় অন্যান্য দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেও এ দিবসটি ব্যাপক উৎসাহ – উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালন করা হবে।
এ দিবসটির উৎপত্তি খ্রিষ্টীয় ও প্রাচীন রোমান প্রথা থেকে। কে এই সেন্ট ভ্যালেন্টাইন? তা আজও রহস্যাবৃত। ক্যাথলিক এনসাইক্লোপিডিয়া অনুসারে তিন জন ভ্যালেন্টাইন বা ভ্যালেন্টিনাস এর সন্ধান পাওয়া যায়। তারা সবাই ১৪ ফেব্রুয়ারী আত্মদান করেন। প্রথম ভ্যালেন্টাইন তৃতীয় শতাব্দীতে রোমের যাজক ছিলেন। ততকালীন সম্রাট দ্বিতীয় ক্লাডিয়াসের ঘোষণা অমান্য করে গোপন প্রেমিক, তরুন – তরুনীদের বিয়ের ব্যবস্থা করায় তাকে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয়।দ্বিতীয় জন ২৭০ সালে আত্মদান করেন তার নাম বিশপ ভ্যালেন্টাইন। তার স্মরণে তার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রতি বছর মধ্য ফেব্রুয়ারীতে ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালন করা হয়। তৃতীয় ভ্যালেন্টাইন উত্তর আফ্রিকার একটি রোমান সাম্রাজ্যে আত্ম উৎসর্গ করেন।

১৪ ফেব্রুয়ারী প্রথম সেন্ট ভ্যালেন্টাইন ডে উৎসব পালনের ঘোষণা দেওয়া হয় ৪৯৮ সালে। পোপ প্রথম জেলসিয়াস এ ঘোষণা দেন। রোমে লটারির মাধ্যমে রোমান্টিক জুটি গঠনকে বেআইনী ও খ্রিষ্টীয় আচার বহির্ভূত মনে করা হতো।চতুর্দশ শতকে ইংল্যান্ডে ও ফ্রান্সে মনে করা হতো ১৪ ফেব্রুয়ারী পাখিদের মধ্যে যুগল হয়। ১৪১৫ সালে জেলখানায় আইন থাকার সময় ডিউক অব অরলিন্সের চার্লস তার স্ত্রীর কাছে ভালবাসার নিদর্শন স্বরুপ একটি কবিতা লিখেছিলেন। এর কয়েক বছর পর ইংল্যান্ডের রাজা পঞ্চম হেনরি ক্যাথরিনের কাছ থেকে ভ্যালেন্টাইন নোট পাঠানোর জন্য জনলিড গেট নামের এক লেখককে আমন্ত্রণ জানান।

১৯ শতকে পোপ ষোড়শ গ্রেগরীর অর্থানুকুল্যে আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনে হোয়াইট ফ্লেয়ার ক্রিষ্ট কারমিলিট চার্চে ভ্যালেন্টাইন ডে পালন করা হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারী সেখানে এখন নিয়মিত মিলন মেলা হয়।
বৃটিশ অভিবাসীদের মাধ্যমে ১৯ শতকেই উত্তর আমেরিকায় ভ্যালেন্টাইন ডে পালিত হয়। চীনে বছরে দুই দিন ভালবাসা দিবস পালন করা হতো। এখন প্রতিবছর ১৪ ফেব্রুয়ারী একদিন ভালবাসা দিবস পালন করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের আদিবাসীরা কার্ড,মিষ্টি, ফুল বিনিময় এবং ডিনারের মাধ্যমে বিশ্ব ভালবাসা দিবস পালন করে। এ দিবসে সেখানে প্রতি বছর ১৬ কোটি কার্ড ও ১৩ কোটি গোলাপ বিনিময় হয়। ব্রিটেনে ১৪ ফেব্রুয়ারীবিশ্ব ভালবাসা দিবসে ব্যাপক বানিজ্যকরণ হয়। ২০০১ সালে বিশ্ব ভালবাসা দিবস উপলক্ষে ব্রিটেনের বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠান গুলো প্রতি বছর বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা করে। প্যাকেজে বিভিন্ন উপহারের পাশাপাশি খাবারেরও ব্যবস্থা থাকে। জাপানেও জাকজমকপূর্ন ভাবে বিশ্ব ভালবাসা দিবস পালন করা হয়। এই দিবসটি উপলক্ষে সেখানকার মহিলারা তাদের পছন্দের পুরুষকে চকলেট উপহার দেয়। যেসব মহিলারা অফিসে কাজকর্ম করেন তাদেরকে তাদের সহকারী পুরুষদের চকলেট উপহার দিতে হয়।

বাংলাদেশে বিশ্ব ভালবাসা দিবস উদযাপন পরিষদ ১৯৯৪ সাল থেকে বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে এ দিবসটি ব্যাপক ভাবে পালন করে আসছে। মানুষের জীবনের চিরায়ত এক অনুষংগের নাম ভালবাসা। সৃষ্টির পর থেকেই মানুষে মানুষে ভালবাসার বন্ধনে আবদ্ধ হচ্ছে। জীবন মানেই ভালবাসা, ভালবাসা মানেই জীবন। আজ ১৪ ফেব্রুয়ারী শুধুই ভালবাসার দিন হারিয়ে যাওয়ার দিন, সুন্দর এক স্বপ্নের দিন। যে স্বপ্ন শুধুই ডানা মেলে, পালায় এদিক ওদিক। স্বপ্নবাজদের স্বপ্ন পুরণের দিন,বিশ্ব ভালবাসা দিবস। বিশ্ব ভালবাসা দিবসে স্বপ্নবাজদের স্বপ্ন পূরণ হোক,সেটাই প্রত্যাশা। শুভ হোক সবার জন্য হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন্স ডে।